ঋদ্ধির মতো দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ক্রিকেটার কমই দেখেছেন, জানালেন লক্ষণ

Spread the love

কাশীনাথ ভট্টাচার্য

কলকাতা, ২২ মার্চ ২০১৯

হঠাৎ বৃষ্টি এল ঝেঁপে। মাঠ থেকে সানরাইজার্স হায়দরাবাদের ক্রিকেটাররা দৌড়ে ফিরলেন প্যাভিলিয়নে। কথা ছিল কলকাতা নাইট রাইডার্সের ক্রিকেটাররা অনুশীলন করবেন তারপর। সম্ভব ছিল না। ফলে, কেকেআর-এর সম্ভাব্য সাংবাদিক সম্মেলনও কালবৈশাখী ঝড়ে বাতিল।

ত্রাতা হয়ে এলেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের মেন্টর ভিভিএস লক্ষণ। ইডেনে ভারতকে যিনি বারবার বাঁচিয়েছিলেন, এবার বাঁচালেন অপেক্ষমান সাংবাদিকদের। আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে অবশ্যই ডেভিড ওয়ার্নার। বলবিকৃতি বিতর্কে অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভ স্মিথের সঙ্গে আইপিএল-এ এক বছরের জন্য নির্বাসিত হয়েছিলেন সানরাইজার্সের অধিনায়ক, দলকে যিনি চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন অধিনায়ক হিসাবে, ২০১৬ সালে।

সিএবি-র একতলায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে যা যা বললেন ভিভিএস –

ডেভিড ওয়ার্নার নিয়ে

মরসুমের শুরুতে ইতিবাচক মনে হচ্ছে ডেভিড ওয়ার্নারকে। গত বছর কেপটাউনে দুর্ভাগ্যজনক ঘটনার পর দীর্ঘদিন মাঠের বাইরে ছিল। এখন সানরাইজার্সের হয়ে নিজের সেরাটা দিতে তৈরি আবার। হায়দরাবাদের হয়ে দুর্দান্ত খেলেছে বরাবর। অসাধারণ ক্রিকেটার এবং অধিনায়ক। দলের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসাবে প্রচুর রান করার দিকে মন দেবে যাতে দলকে আরও বেশি ম্যাচ জেতাতে পারে, সম্ভব চ্যাম্পিয়ন করতে পারে আমাদের।

ওয়ার্নারের সুস্থতা নিয়ে

পুরোপুরি সুস্থ। খেলার জন্য মুখিয়ে আছে। সুস্থ হয়ে মাঠে ফেরার জন্য প্রচুর পরিশ্রম করেছে। যা দেখে অবাক হলাম, প্রথম দিন অনুশীলন থেকেই সেরা ফর্মে। হায়দরাবাদে কয়েকটা অনুশীলন-ম্যাচ খেলেছিলাম। দুটো ম্যাচেই রান পেয়েছিল, বুঝিয়ে দিয়েছিল ছন্দে আছে, যা আমাদের আনন্দের কারণ।

ইডেনের উইকেট নিয়ে

ইডেনের উইকেট বেশ ভালই লাগল দেখে। মাঠও দুরন্ত। সবুজ আউটফিল্ড। ইডেনে সব ম্যাচেই বড় রান হবে, মনে হচ্ছে। একই সঙ্গে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাও হবে, কারণ বোলারদের জন্যও যথেষ্ট সুবিধাজনক। ঘাসের আভাস আছে উইকেটে, অর্থাৎ জোরে বোলাররাও সুবিধা পাবে, বিশেষ করে বিকেলের ম্যাচে। স্পিনাররাও কাজে আসবে। দেখে যা মনে হল, উইকেটটা শক্ত। ব্যাটসম্যানরা উপভোগ করবে। টি টোয়েন্টির জন্য আদর্শ উইকেট।

ঋদ্ধি, শ্রীবৎস নিয়ে

দুজনেই বাংলার ক্রিকেটার, ইডেনের উইকেট চেনে। ঋদ্ধি চোট সারিয়ে অনেক দিন পর ফিরে খুবই ভাল খেলেছিল মুস্তাক আলি ট্রফিতে। পরিশ্রম করেছিল সুস্থ হতে, ফল পেয়েছে। একই কথা বলব শ্রীবৎস সম্পর্কেও, ছন্দেই ছিল। গত বছর আইপিএল-এ দুজনেই ছিল হায়দরাবাদের অন্যতম সেরা পারফরমার। সেমিফাইনালে গতবার ইডেনে যেভাবে ভাঙা আঙুল নিয়েও উইকেটকিপিং করেছিল ঋদ্ধি, মুগ্ধ হয়েছিলাম। ওদেরকে পেয়েও খুশি। চারিত্রিক দিক দিয়ে কতটা দৃঢ়, বুঝিয়ে দিয়েছিল। সানরাইজার্সে আমরা এমন ক্রিকেটারদেরই চাই যারা দলের জন্য সর্বস্ব দিতে সবসময় তৈরি। আমার জীবনে ঋদ্ধির মতো এমন দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ক্রিকেটার কমই দেখেছি।

বিশ্বকাপ এবং আইপিএল নিয়ে

সবাই পেশাদার। আইপিএল-এর মতো প্রতিযোগিতায় খেললে সুবিধা হবে সেরা ছন্দে থেকে বিশ্বকাপে যেতে। তবে, সবাইকেই বিচক্ষণ হতে হবে। পেশাদার এবং একই সঙ্গে চতুরও ওরা সবাই। ওয়ার্কলোড ম্যানেজমেন্ট নিয়ে ভাববে ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো। অনেক দিনের প্রতিযোগিতা, ভাবতেই হবে। প্রচুর ঘোরাঘুরিও আছে, অল্প দিনের ব্যবধানেই খেলা। তাই কে কতটা পরিশ্রম করছে, দল যেমন দেখবে, ক্রিকেটাররা নিজেরাও মাথায় রেখেই এগোবে। ওরা জানে কী করে নিজেদের ফিটনেস ধরে রাখতে হবে। বিশ্বকাপের দিকে তাকিয়ে আমরা সবাই-ই। ভারত দুর্দান্ত খেলুক এবং বিশ্বকাপ জিতুক, সবাই চাই। নিশ্চিত, ক্রিকেটাররা বুদ্ধিমত্তার সঙ্গেই সমস্ত সামলাবে। আইপিএল-এ খেলাটা সুবিধাজনকই হবে। সেরা দলগুলোর বিরুদ্ধে খেলতে পারবে আবার সেরাদের সঙ্গে খেলার সুযোগ পাবে।

Kashinath Bhattacharjee
Covered two FIFA World Cups in Brazil (2014) and Russia (2018), UEFA Champions League Final in Moscow (2008). In Sports Journalism since 1993. twitter: @bkashi
https://www.facebook.com/kashinath.bhattacharjee

Leave a Reply